Tuesday , 22 January 2019

4G বিড়ম্বনা এবং বাস্তবতা

১। ফোর-জি তে ভালো স্পিড পেতে অধিকাংশ মোবাইল অপারেটর মোবাইল হ্যান্ডসেটে Network Mode/Preferred Network Mode: 4G/LTE Only হিসেবে সিলেক্ট করার জন্য তাদের গ্রাহকদের Recommend করেছে। যেহেতু এখনো VoLTE/ViLTE ফিচারটি চালু করা হয়নি, সেহেতু এই ধরণের Recommendation অযৌক্তিক নয় কি?

২। অপর দিকে স্পিড সংক্রান্ত অভিযোগের ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন স্পিড 1Mbps এর নিচে না হলে স্পিড সক্রান্ত কোন অভিযোগ গ্রহণ করবেনা বলে জানিয়ে দিয়েছে দেশের শীর্ষস্থানীয় মোবাইল অপারেটর Grameenphone যেখানে #3G তে ডিফল্ট স্পিড ছিলো 1Mbps, সেখানে ফোর-জিতে স্পিড সংক্রান্ত অভিযোগের ক্ষেত্রে স্পিড লিমিট আরও বেশি হওয়া উচিৎ ছিলো।

৩। ইন্টারনেট #Speed মিটার দিয়ে স্পিড টেস্ট করে অনেকেই খুশিতে ফেটে পড়েন। প্রকৃতপক্ষে স্পিড মিটারে যেই স্পিড দেখানো হয় আমরা কি সেই অনুযায়ী স্পিড পেয়ে থাকি বা বাস্তবে এত কার্যকারিতা কতটুকু?

৪। #iPhone ব্যবহারকারীরা ফোর-জি সেবা উপভোগ করতে পারবেন না! 😱 অন্যান্য দেশের মোবাইল অপারেটরগুলো আইফোন ব্যবহারকারীদের উপর এই ধরণের কোন বিধি নিষেধ আরোপ করেছে কিনা তা নিয়ে আমি যথেষ্ট সন্ধিহান। আমাদের দেশের অধিকাংশ মোবাইল অপারেটর তাদের গ্রাহকদের ব্যাখ্যা দিয়েছে, “আইফোনের কান্ট্রি লক খুলতে হবে, আইফোন 4G ফিচারটি হিডেন করে রেখেছে, ইত্যাদি…। প্রকৃতপক্ষে আইফোন ফোর-জি সেবার ক্ষেত্রে এই ধরণের কোন Restrictions আরোপ করেনি। উল্লেখ্য যে, #Grameenphone ইতিমধ্যে জানিয়েছে তারা এই বিষয়ে সরাসরি আইফোনের সাথে কাজ করছে।

৫। কয়েকটি সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে Bangladesh Telecommunication Regulatory Commission (BTRC) মোবাইল অপারেটরদের নির্দেশ দিয়েছেন 4G এর নুন্যতম স্পিড 7Mbps করার জন্য। যদিও মোবাইল অপারেটরদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তাদের কাছে এই ধরণের কোন অফিসিয়াল কমিউনিকেশন নেই বলে জানিয়ে দিয়েছে।

৬। #Robi কল সেন্টারে কল করে জানতে চাওয়া হয় 4G তে নেটওয়ার্ক সিগনাল কি হবে (4G/LTE/Other)? উত্তরে তাদের কাছে এই ধরণের কোন অফিসিয়াল কমিউনিকেশন নেই বলে জানিয়ে দিয়েছে।

৭। রবি এবং Airtel Buzz গ্রাহকগণ *123*44# নম্বরে ডায়াল করে বিনামূল্যে জানতে পারবে তাদের সিম/হ্যান্ডসেট ফোর-জি সেবার জন্য উপযুক্ত কিনা। হ্যান্ডসেট ফোর-জি সাপোর্ট করা সত্ত্বেও কিছু হ্যান্ডসেটে উক্ত USSD Code টি ডায়াল করলে Handset: Not 4G Supported দেখানো হয়। অথচ সেই হ্যান্ডসেটগুলোতে #GP4G #Banglalink4G অনায়াসে চলে। হ্যান্ডসেটসহ সরাসরি কাস্টমার কেয়ার সেন্টার যোগাযোগ করা হলে হ্যান্ডসেটে সমস্যা আছে বলে তারা জানিয়ে দেয়।

৮। থ্রি-জি থেকে ফোর-জি সেবায় আপগ্রেড করার জন্য মোবাইল অপারেটরগুলো ৫০-১০০/১১০ টাকা হারে সিম রিপ্লেসমেন্ট চার্জ নিয়েছে। কিন্তু রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল অপারেটর Teletalk জানিয়েছে তাদের থ্রি-জি থেকে ফোর-জি সেবায় আপগ্রেডের জন্য সিম রিপ্লেসমেন্টের প্রয়োজন পড়বেনা। তবে শুধুমাত্র ১০% সিম রিপ্লেস করতে হতে পারে।

৯। Robi Axiata Limited বরাবরই তাদের ইন্টারনেট সেবার ক্ষেত্রে 0.5G এগিয়ে থাকে। যেমন: 3.5G, 4.5G, 4G+ 😝 প্রকৃতপক্ষে তারা কত G দিয়ে থাকে তা একমাত্র তাদের সম্মানিত গ্রাহকরাই অনুধাবন করতে পারেন। সেই সাথে তারা নিজেরাই নিজেদের দেশের ১ নম্বর অপারেটর বলে ঘোষনা দিয়ে আসছে। যদিও বেশকিছু আগে প্রায় ১৮ কোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগে তাদের ব্যাংক হিসাব জব্দ করা হয়েছিলো। 😀

১০। ফোর-জি সেবার মান উন্নয়নের জন্য সবগুলো অপারেটর মিলে ফোর-জিতে বিনিয়োগ করতে হবে প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকা। যেখানে পূর্বে থ্রি-জিতে বিনিয়োগ হয়েছিলো ৩২ হাজার কোটি টাকা। আর ৪ বছরে ফেরত এসেছে মাত্র ৬ হাজার কোটি টাকা। অতএব বলা যায় যে, ফোর-জিতে উল্লেখিত বিনিয়োগ না হলে ফোর-জি সেবার নামে আমরা গ্রাহক হিসেবে থ্রি-জি সেবা উপভোগ করে যাবো। আমাদের মানসিক সন্তুষ্টির জন্য মোবাইল অপারেটরগুলো আমাদের মোবাইল হ্যান্ডসেটে 4G/LTE Signal দেখিয়ে যাবে। 😀

বি: দ্র: ফোর-জি সেবা চালু হওয়ার পর থেকে সবকিছু পর্যালোচনা করেই উল্লেখিত ওয়াল পোস্টটি করা হয়েছে। পেইজের ফলোয়ার/গ্রাহক হিসেবে কারও কোন গ্রহণযোগ্য/বাস্তবসম্মত/রুচিসম্মত দ্বিমত/অভিমত/অভিযোগ থাকলে কমেন্টে শেয়ার করতে পারেন। অন্যথায় ফোর-জি সেবার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে নিজ নিজ মোবাইল অপারেটরের কাস্টমার কেয়ার/কল সেন্টারে পরামর্শ জানাতে পেইজের এডমিন প্যানেল থেকে বিশেষভাবে অনুরোধ করা যাচ্ছে। ধন্যবাদ।

Leave a Reply