Wednesday , 17 October 2018

ফোরজির কার্যক্রম স্থগিত

ফোরজির সকল কার্যক্রম স্থগিত করেছেন আদালত। বৃহস্পতিবার এক আদেশে চতুর্থ প্রজন্মের এ সেবা দিতে প্রকাশিত বিজ্ঞাপনের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন স্থগিতের ফলে নিলামসহ ফোরজি লাইসেন্স প্রদান সংক্রান্ত সব ধরনের উদ্যোগ পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বন্ধ থাকবে বলে আইনজীবীরা জানান। বিচারপতি নাঈদা হায়দার ও জাফর আহমেদের বেঞ্চ বাংলালায়নের রিটের প্রেক্ষিতে এ আদেশ দিয়েছেন।

সরকার অনেক দিন থেকে এ সেবা চালু করতে চায়। নানা কারণে এতদিন তা ঝুলে থাকলেও চলতি বছর দ্রুততম সময়ে তা চালু করতে পদক্ষেপ নেয়। এ জন্য ১৪ জানুয়ারি লাইসেন্স পেতে আবেদনের শেষ সময় নির্ধারণ করা হয়। আর ১৩ ফেব্রুয়ারি নিলামের দিন ঠিক করা হয়েছে।

ওয়াইম্যাক্স অপারেটর বাংলালায়নের এক রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে এমন আদেশ দিয়েছেন আদালত। অপারেটরটির আইনজীবী ড. কামাল হোসেনের সহকারী অ্যাডভোকেট রমজান আলী মুন্সী এ তথ্য জানিয়েছেন।

বাংলালায়নের দাবি, ওয়াইম্যাক্স এক ধরনের ব্রড ব্যান্ড সেবা। তাদের লাইসেন্স দেওয়ার সময় বিটিআরসি জানিয়েছিল দেশে আর কোনো ব্রড ব্যান্ড লাইসেন্স দেওয়া হবে না। আর ফোরজিও ব্রড ব্যান্ড সেবা। তাই নিয়ন্ত্রক সংস্থা তার নিজের নিয়মই ভাঙছে, যা নীতির বরখেলাপ।

এ কারণে ফোরজি সেবার জন্য লাইসেন্সের আবেদনের বিজ্ঞাপন বাতিল চেয়েছে ওয়াইম্যাক্স অপারেটরটি।

রিটের বিষয়ে জানতে চাইলে বিটিআরসির কর্মকর্তারা জানান, এ বিষয়ে তারা দ্রুততম সময়ে আইনগত পদক্ষেপ নেবেন। ফোরজি কার্যক্রম যাতে পিছিয়ে না যায় সেজন্য যথাযথ চেষ্টা চালাবেন।

বাংলালায়নের দাবির বিষয়ে তারা বলেন, এ বিষয়ও খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দেশে নতুন প্রজন্মের সেবা ফোরজি চালু করতে সরকারের পাশাপাশি মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোও প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। বেশ কয়েকটি অপারেটর ফোরজি সিম বিক্রি শুরু করেছে। তবে এ খাতে বড় বিনিয়োগের আগে বিটিআরসির সঙ্গে ফোরজি নীতিমালা নিয়ে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে।

কমিশন কয়েকদফা সংশোধনের পর নীতিমালা চূড়ান্ত করেছে। এরপরও অপারেটরগুলো তা নিয়ে আপত্তি জানিয়ে আসছে। এ নিয়ে আবারও আলোচনার সুযোগ রয়েছে বলে টেকশহরডটকমকে জানিয়েছেন নতুন টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

collected

Leave a Reply